শনিবর, ২২ জু ২০২৪, সময় : ১১:৫০ am

সংবাদ শিরোনাম ::
পুলিশকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশ, তীব্র প্রতিবাদ বিপিএসএর মোদির আমন্ত্রণে দিল্লির উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী নাচোল সোনালী অতীত ফুটবল টুর্নামেন্টের সমাপনী ও ক্রেস্ট বিতরণ ঢাকাস্থ্য নাচোল উপজেলা সমিতি সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময় নাচোলে মেধাবী শিক্ষার্থী ও অসচ্ছল ভ্যানচালকের মাঝে চেক বিতরণ সড়ক দুর্ঘটনায় মোহনপুরে এনজিও কর্মী নিহত রাসেল’স ভাইপার : গুজব সত্যের চেয়ে ঝোড়োবেগে চলে! নাচোলে হত্যা মামলার আসামির আত্মহত্যা পবায় বয়স বাড়িয়ে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত পপি, তদন্ত কমিটি গঠন নগরীতে কিছুটা বেড়েছে গরুর চামড়ার দাম, ছাগলের বিক্রি হয়নি দীর্ঘদিন ব্যবহারে ওয়াই-ফাইয়ের পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে বের করবেন যেভাবে নানা উদ্যোগে নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না ভেজাল ওষুধ উখিয়ায় পাহাড়ধসে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৯ জনের মৃত্যু নওগাঁর নিয়ামতপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালক নিহত সমলিঙ্গ বিয়ের অনুমতি দিলো থাইল্যান্ডের পার্লামেন্ট আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে তানজিম সাকিবকে আইসিসির জরিমানা রাজধানীতে টিকিট না পেয়ে মধুমিতা হলে ভাঙচুর পুলিশের আরেক সাবেক কর্মকর্তার দুর্নীতি তদন্তে নামছে দুদক? পুঠিয়ায় ফেসবুকে ভিডিও পোস্ট দিয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা একুশে পদকপ্রাপ্ত কবি অসীম সাহা আর নেই
গৃহবধূ থেকে কাটাখালী পৌরসভায় মেয়র হলেন মিতু

গৃহবধূ থেকে কাটাখালী পৌরসভায় মেয়র হলেন মিতু

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রাজনীতির মাঠে আগে কখনো দেখা যায়নি। ঘর-সংসার আর সন্তানকে নিয়েই ব্যস্ত থাকতেন রাবেয়া সুলতানা মিতু। নিছক তিনি একজন গৃহবধূ। এই নারীই প্রথমবারের মতো রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র পদের উপনির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। হারিয়ে দিয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী আট প্রার্থীকে। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে মিতুর পাওয়া ভোটের ব্যবধানও প্রায় দ্বিগুণ।

রোববারের এ ভোটের পর এর ফলাফল নিয়ে এখন বিশ্লেষণ চলছে। রাজশাহীর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে মিতুর এই বিজয়কে একটু আলাদা চোখেই বিচার করা হচ্ছে। কারণ তার জয়ের নেপথ্যে রয়েছেন স্বামী সাবেক মেয়র আব্বাস আলী। তিনি কাটাখালী পৌর আওয়ামী লীগের আহবায়ক ছিলেন।

ঘরোয়া আলাপের একটি অডিও ফাঁস হওয়াকে কেন্দ্র করে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় এবং এই অডিওকে কেন্দ্র করে করা মামলার কারণে প্রায় এক বছর তিনি কারাভোগ করেন। তখন তাকে মেয়রের পদ থেকেও বরখাস্ত করা হয়।

স্থানীয় রাজনীতিতে আব্বাস কোণঠাসা হওয়ার পরে তার জায়গা দখলে নেওয়ার চেষ্টা করেন দলের নেতা আবু শামা। তিনি পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদও পেয়ে যান। এ উপনির্বাচনে তিনি মেয়র প্রার্থীও হয়েছিলেন। তবে ভোট পেয়েছেন মাত্র ৩ হাজার ৪৮৭টি। আর আব্বাসপত্নী মিতু পেয়েছেন ৬ হাজার ৩০৮ ভোট।

আব্বাসবিরোধী হিসেবে পরিচিত পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহুরুল আলম রিপন পেয়েছেন মাত্র ১ হাজার ৩৩৯ ভোট। এক সময়ের জামায়াত-শিবির অধ্যুষিত এই এলাকায় সাবেক শিবির নেতা মিজানুর রহমান পেয়েছেন ২ হাজার ৯১৭ ভোট। আর জামায়াত নেতা সিরাজুল হক পেয়েছেন মাত্র ৩৮৪ ভোট। কয়েকজন প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

এ নির্বাচনে মিতুর বিজয়কে স্বামী আব্বাস আলীর বিজয় হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন দুলাল বলেন, কাটাখালী এলাকাটি একসময় জামায়াত অধ্যুষিত ছিল। এবারের উপনির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী মিজানুর রহমানের বাবা জামায়াত নেতা মাজেদুর রহমান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। পৌরসভা গঠনের পর মেয়রও হন। সবমিলিয়ে প্রায় দেড় দশক তিনি কাটাখালীর জনপ্রতিনিধি হিসেবে জামায়াতকে শক্তিশালী করেন।

তিনি বলেন, পরবর্তীতে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে দুইবার মেয়র হয়ে আব্বাস আলী জামায়াতের সেই শক্তি ভেঙে দেন। তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী হয়; কিন্তু রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীরা তাকেই কোণঠাসা করে তার জায়গা দখলের চেষ্টা করেছিলেন। তারা কিছুদিন সুযোগ পেয়ে কাটাখালীতে সন্ত্রাস শুরু করেছিলেন। এই ভোটে অনেক ষড়যন্ত্রের জবাব দেওয়া হয়েছে। ভোটে আব্বাসের স্ত্রীর জয় মানে আব্বাসেরই জয়।

আগে কখনো রাজনীতি না করেও মিতুর বিপুল ভোটে এ জয়ের কারণ কী, এমন প্রশ্নে কাটাখালী বাজারের ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম বলেন, কারণ শুধুমাত্র তার স্বামী। স্বামী আব্বাস আলীকে দেখেই পৌরবাসী মিতুকে ভোট দিয়েছেন। কারণ আব্বাস আলী মেয়র থাকা অবস্থায় ভালো কাজ করেছেন। এলাকার উন্নয়ন করেছেন। বিশেষ করে করোনার সময় তিনি যেভাবে খাদ্যসহায়তা দিয়েছেন সে কথা এখনো মানুষের মুখে মুখে। তাকে থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে, কিন্তু থামানো যায়নি। এই ভোটেই সেটার প্রমাণ হয়েছে।

এ নির্বাচনে যেকোনো উপায়ে আব্বাসপত্নীকে ঠেকানোই ছিল অন্য প্রার্থীদের লক্ষ্য। আইনগত বাধার কারণে আব্বাস প্রার্থী হতে না পারলে ভোটে আসেন স্ত্রী মিতু। উচ্চ আদালতের নির্দেশে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও দাখিলের সময় শেষ হলেও তিনি মনোনয়নপত্র দাখিলের সুযোগ পান। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে অন্য আট প্রার্থী রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তরে গিয়ে তার সঙ্গে চোটপাট করেছিলেন।

আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামায়াত ও শিবিরের এই আট প্রার্থী একসঙ্গে বলেছিলেন, মিতুকে যেন প্রার্থিতা দেওয়া না হয়। তাদের মধ্যে থেকে সাতজন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেবেন। একজন বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবেন। তবে শেষপর্যন্ত তা হয়নি। ভোটে মিতুই মেয়র হলেন।

এখন স্বামীর দিকনির্দেশনা নিয়েই পৌরসভাকে এগিয়ে নিতে চান মিতু। তিনি বলেন, আমার স্বামী এই পৌরসভার দুইবারের মেয়র ছিলেন। তার অনেক অভিজ্ঞতা আছে। আমি নতুন হলেও তার দিকনির্দেশনা নিয়ে পৌরসভাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কাজ করব।

মিতুর স্বামী সাবেক মেয়র আব্বাস আলী বলেন, ভোটের এই ফল সব ধরনের অন্যায়-অবিচার ও জুলুমের জবাব। এই জয় কাটাখালী পৌরসভার সব মানুষের জয়। তারা যে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, এই ভোটের ফল তার প্রমাণ। এখন আগের মতো সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, ভূমিদস্যুতা ও ইভটিজিংমুক্ত এলাকা গঠনই আমাদের লক্ষ্য। পৌরসভায় আবার নাগরিক সেবা ফিরে আসবে। রা/অ

স্যোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

ads




© All rights reserved © 2021 ajkertanore.com
Developed by- .:: SHUMANBD ::.